Lo cual es lo que acontece cuando te reencuentras con el amor de tu vida, segun El Hormiguero

Lo cual es lo que acontece cuando te reencuentras con el amor de tu vida, segun El Hormiguero

Lo cual es lo que acontece cuando te reencuentras con el amor de tu vida, segun El Hormiguero

Cinco parejas se vuelven a ver anos de vida despues sobre concluir su contacto

Cinco mujeres se reencuentran con el apego sobre su vida, ya sea porque fue el primero o, como dice una de las participantes, por motivo de que “ha sido la cristiano que me ha marcado”. Este era el momento de partida del video que emitio El Hormiguero la noche de el miercoles. “La idea se me ocurrio despues de grabar el video sobre los desconocidos que se miran a los ojos -explica Paola Calasanz, responsable de Dulcinea Estudios desplazandolo hacia el pelo autora de el video-. Pense que es excelente repetir el experimento pero con seres que hiciera lapso que nunca se vieran”.

En la primera parte de el video, ellas se muestran en monitor asi­ como explican quien es el novio, lo que significo en su vida y no ha transpirado cual es su posicion personal actual. Luego abandonan el plato y no ha transpirado se muestran ellos con una venda en los ojos. Las ganchos vuelven al plato, se ponen enfrente con otra venda en las ojos y no ha transpirado a la ocasion se descubren. “En ese preciso instante les prohibimos hablar, tenian que mirarse a los ojos durante el lapso que suena la cancion Mil disculpas que el conjunto A camara lenta compuso de este proyecto”, relata. Es este momento del video el que recuerda a su precedente labor. “En este caso nunca les hemos inducido, nunca usamos estrategi­as como la otra vez”.

Detras de mirarse a los ojos durante min., la directora cuenta que las parejas se quedan en shock. “Durante el ensamblaje decidi dejar gran cantidad de momentos sobre silencios o miradas porque les fue muy complicado hablar, reaccionar, decirse cosas”, cuenta.

En el video se ven lagrimas y no ha transpirado, en ocasiones, sonrisas asi­ como abrazos. Existen parejas que hablan con carino (“solo deseo que nunca me olvides”), diferentes intentan colocar distancia (“paso lo que paso, no ha podido acontecer”). 2 de ellas acaban a besos y en un caso se oye la retahila de “te quiero”, a lo que ella contesta “Que no lo saben”, refiriendose al aparato que esta grabando el video. “Ah si, se me habia echado en el olvido -dice el-. Son cosas que podri­an pasar. Estoy casado”.

Esta pareja llevaba 13 anos de vida desprovisto verse. El novio esta casado, si, sin embargo en pleno procedimiento de separacion. Detras de la grabacion han vuelto a quedar juntos, explica Calasanz. Diferentes 2 parejas ademas se continuan observando luego sobre participar en este experiencia.

De Adquirir a sus conejillos sobre indias, Calasanz puso un publicidad en su perfil sobre Twitter en el que se pedia la colaboracion sobre muchedumbre que quisiera reencontrarse con el enorme amor sobre su vida, “que nunca todo el tiempo es el primero”, aclara la directora. “Nos escribio la mayoridad de chicas”, explica. Ellas eran las que les daban el comunicacion de su expareja o las pistas para conseguir localizarle. En otros casos, eran terceras usuarios, amigas que querian que las amigas volvieran a ver las antiguos novios.

Inclusive que consiguieron concentrar a las parejas pasaron meses. “No separado nos costo encontrarles; una vez que dabamos con ellos, les deciamos que se iba a emitir en television y no ha transpirado se negaban”.

En el menor momento les dijeron que iban a ver a las exnovias, unico les especificaban que era la precios chinalovecupid alma de su anterior. Esta es una diferente de estas razones por las que el proyecto se alargo en el tiempo, bastantes se negaron pensando que se iban a reecontrar con antiguas parejas por motivo de que, segun explica la directora, habian rehecho su vida.

Las seleccionados tenian la ultima eleccion de abandonar la grabacion. “Al no ser en directo, les dimos la alternativa de irse En caso de que les gustaba lo que encontraban”, dice.

* Ademi?s puedes seguirnos en Instagram desplazandolo hacia el pelo Flipboard. ?No te pierdas lo superior de Verne!

এই পোস্টটি সোশাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আমাদের ডোনেট করুন

শিশুদের উন্নয়নে অংশিদার হোন
আমাদের সহায়তা করুন

বিকাশ নাম্বার- ০১৭৩৬২১৩৮২৮

মাসব্যাপি অনলাইন কুইজ প্রতিযোগীতা-২০২০ইং

মাসব্যাপি অনলাইন কুইজ প্রতিযোগীতা-২০২০ইং পেতে এখানে ক্লিক করুন ।

অনলাইনে ভোটার রেজিষ্টেশন

অনলাইনে ভোটার রেজিষ্টেশন ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন ।

অনলাইনে সদস্য ফরম

অনলাইনে সদস্য ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন ।

সকল ফরম সমূহ

শিশু সংসদ সদস্য পদে আবেদন ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন ।

নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন

উপ শিশু সাংসদ সদস্য পদে আবেদন পত্র পেতে এখানে ক্লিক করুন

উপদেষ্টা পদে সম্মতি পত্র পেতে এখানে ক্লিক করুন

ভোটার রেজিঃ ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন

চেয়ারম্যানের পরিচয়

মিস. ফাতিমা মুন্নি। প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান বাংলাদেশ জাতীয় শিশু সংসদ বিএনসিপি। তিনি দেশের অন্যতম একজন শিশু সংগঠক, শিশু গবেষক এবং সম্পাদক। তিনি জনপ্রিয় জাতীয় শিশু কিশোর ম্যাগাজিন কিশোর গোয়েন্দা’র সম্পাদক ও প্রকাশক। এছাড়াও তিনি বিএনসিপির সকল সহযোগী প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রতিষ্ঠাতা।১৯৯৬ সালে ৩০ শে মে ঐতিহাসিক কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বর্তমানে স্বপরিবারে ঢাকার কমলাপুরে বসবাস করেন। তিনি ঐহিয্যবাহী কুমিল্লা ভিক্টরিয়া সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিষয়ে অর্নাসে প্রথম শ্রেণীতে উৎতিন্ন হয়ে একই কলেজ থেকে মাষ্টার’স শেষ করে বর্তমানে উচ্চতর ডিগ্রী পিএইসডি অর্জনের জন্য দেশের বাহিরে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
তিনি ছোট বেলা থেকেই শিশুদের ব্যাপারে খুবই কৌতুহলি এবং আবেগি ছিলেন। তিনি সব সময় শিশুদের উন্নয়ন এবং ভবিষৎতে যেন আজকের শিশুরাই আগামীর পৃথিবীকে সুন্দর ও যুগ উপযুগী সিদ্ধান্ত নিয়ে সঠিক ভাবে পরিচালনা করতে পারে এই নিয়ে চিন্তা করতেন। “আজকের শিশুরাই আগামীর ভবিষৎত” মূলত এই ব্যাক্যটি থেকেই বিএনসিপির জন্ম। মিস. ফাতিমা মুন্নির মতে যদি আজকের শিশুরাই আগামীর ভবিষৎত হয়ে থাকে তবে অবশ্যই তাদের আগামীর জন্য উপযুক্ত করে গড়ে তুলতে হবে এবং অবশ্যই সেই গড়ে উঠার মাধ্যমটি হতে হবে সম্পূর্ন ভিন্ন, কৌতুহলি, যুগ উপযুগী এবং সর্বপরি সর্বজনিন গ্রহণযোগ্য। কি হতে পারে সেই মাধ্যম, এমন চিন্তা, গবেষণা এবং অক্লান্ত প্ররিশ্রমের ফল ই হল আজকের বিএনসিপি। বিএনসিপি শুধুমাত্র একটি সংগঠন নয়, এটি রাষ্ট্র ও সমাজের শুভ, কল্যাণ ও শ্রেয়বোধ উন্নয়ন মূলক প্রতিষ্ঠান। নতুন প্রজন্ম নতুন পৃথিবী চায় তারা এ দেশের ভবিষ্যত নির্মাতা। তাদের রুচি, মেধা ও মূল্যবোধের ওপরই নির্ভর করছে দেশের ভবিষ্যত কতটা উজ্জলতর হবে। নিজেকে উন্নত মানুষ হিসাবে গড়ে তুলতে পারাটাই প্রত্যেকে এক বড় কর্তব্য। তাহলেই তারা তাদের মেধা, শ্রম, শিক্ষা ও রুচি দিয়ে দেশ, মানুষ ও বিশ্বমানবতার কল্যাণে নিজেদের নিয়োজিত করতে পারবে এবং গণতন্ত্র চর্চ্যা, সাহিত্য, শিল্প, সংস্কৃতি, খেলাধুলার মধ্য দিয়েই শিশুরা হয়ে উঠবে আর্দশ নাগরিক হিসাবে। বিএনসিপি নতুন প্রজন্মের মধ্যে এই মানবিক মূল্যবোধ সঞ্চার করতে চায়। এটি মানবিক মূল্যবোধে উজ্জ্বিবিত মানুষের সম্মিলিত হওয়ার, নিজেকে গড়ে তোলার এবং মানবতার কল্যাণে কাজ করার একটি মঞ্চ। “আমরা জয় করব নিজেকে, জয় করব এই দেশকে এই দেশের মানুষকে এই আমাদের অঙ্গিকার” এই শ্লোগান নিয়ে প্রতিষ্ঠিত বিএনসিপি। সারা দেশেই রয়েছে এর বিস্তৃতি। এটি একটি শিশু অধিকার রক্ষা এবং শিশু-কিশোদের নেতৃত্ব বিকাশ ও মানসিক উন্নয়নের লক্ষে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠার অন্যতম শ্রেষ্ট মাধ্যম।

“শিশুদের উন্নয়নে অংশিদার হোন
আমাদের সহায়তা করুন
বাংলাদেশ জাতীয় শিশু সংসদ বিএনসিপি
আসুন সবাই শিশুদের উন্নয়ন করি কপি”

ধন্যবাদান্তে
ফাতিমা মুন্নি
প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান
বাংলাদেশ জাতীয় শিশু সংসদ বিএনসিপি